ডেটা দিয়ে সাংবাদিকতা কিভাবে

ঘটনা-দুর্ঘটনা-অনুসন্ধান এসব তো ডেটাকে ভিত্তি করে ঘটে না। তাহলে সাংবাদিকতায় আমরা ডেটা ব্যবহার করব কিভাবে?

২.১

ডেটা সাংবাদিকতা কি আসলেই কোনো সাংবাদিকতা? সংবাদ বলতে আমরা মূলত বুঝি ঘটে যাওয়া ঘটনার উপস্থাপন। মুদ্রিত সংবাদমাধ্যমের ক্ষেত্রে গতকাল যা ঘটেছে আজ তা সবিস্তারে বা সংক্ষেপে পাঠকের সামনে উপস্থাপন করাই সাংবাদিকতা। অনলাইন/টেলিভিশন সংবাদমাধ্যমের ক্ষেত্রে মূলত আজ একটু আগে যা ঘটেছে তা পাঠকের সামনে তুলে ধরাই সাংবাদিকতা।

মুদ্রিত, অনলাইন, টেলিভিশন- এই তিন মাধ্যমের সাংবাদিকতাতেই ডেটার ভূমিকা কোথায়? ঘটনা-দুর্ঘটনা-অনুসন্ধান এসব তো ডেটাকে ভিত্তি করে ঘটে না। তাহলে সাংবাদিকতায় আমরা ডেটা ব্যবহার করব কিভাবে? প্রচলিত প্রতিবেদনে যে ডেটার ব্যবহার হয় না, তা-ও তো নয়। বিশেষ করে অর্থনীতি সংশ্লিষ্ট নানা খবরে আমরা টেবল বা গ্রাফ আকারে কিছু ডেটার ব্যবহার দেখতে পাই। তবে এসব ক্ষেত্রে ডেটা ব্যবহৃত হয় প্রতিবেদনের পরিপূরক হিসেবে। শুধুই ডেটার ওপর নির্ভর করে প্রতিবেদন তৈরির প্রবণতা বাংলাদেশে এখনো শুরু হয়নি।

২.২

শুধু ডেটাকে ভিত্তি করেও প্রতিবেদন তৈরি হতে পারে। ধরা যাক সড়ক দুর্ঘটনা বিষয়ক খবর। সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির খবর প্রায় প্রতিদিনই দেশের সংবাদপত্রগুলোয় প্রকাশ হচ্ছে। কিন্তু সড়কে প্রাণহানির সামগ্রিক চিত্র নিয়ে খবর প্রকাশ হয় খুবই কম। যাও হয় তাও টেক্সট ভিত্তিক। ২০১৮ সালের অগাস্ট সড়কে নৈরাজ্যের প্রতিবাদে স্কুলশিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময়ের কথা মনে করুন। সেসময় সংবাদপত্রগুলি প্রতিদিন সড়কে নৈরাজ্য বিষয়ক খবর প্রকাশ করেছে। কিন্তু গত ১০-১৫ বছরের সড়ক দুর্ঘটনার ডেটাভিত্তিক খুঁজে পাওয়া মুশকিল।

অথচ সড়ক দুর্ঘটনা বিষয়ক ডেটা আমাদের হাতের নাগালেই রয়েছে। এই ডেটা পেতে সাংবাদিকের শারীরিকভাবে কোনো সরকারি অফিসে যাওয়ারও প্রয়োজন নেই। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো প্রকাশিত বাৎসরিক পরিসংখ্যান গ্রন্থেই এই ডেটা পাওয়া যায়। সেখানে দেশের ৬৪ জেলায় গত কয়েক বছরের সড়ক দুর্ঘটনা ও তাতে আহত-নিহতের ডেটা দেয়া রয়েছে। সেই ডেটা নিয়ে পুরো দেশের সড়ক পরিস্থিতি বিষয়ে ডেটা প্রতিবেদন করা সম্ভব ছিল। কেমন হতে পারত সেই প্রতিবেদন?

ঢাকা বিভাগে ২০১৭ সালে কোন্ জেলায় সড়ক দুর্ঘটনা বেশি হয়েছিল? বিভাগের জেলাগুলোতে ১০ বছরে সড়ক দুর্ঘটনার প্রবণতা, অর্থাৎ হ্রাস-বৃদ্ধি, কেমন? বছর ওয়ারি হিসেবে এইসব প্রশ্নের উত্তর সহজেই পাঠক বুঝে নিতে পারেন এই গ্রাফিক-রিপোর্ট থেকে।

পাঠককে শুধু সড়ক দুর্ঘটনার সংখ্যা, বা দুর্ঘটনা হ্রাস-বৃদ্ধির চিত্র সম্পর্কে জানালেই তো হবে না। দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বিষয়েও তো জানতে চাইবেন পাঠক। সেজন্য পরিসংখ্যান ব্যুরোর সেই বাৎসরিক পরিসংখ্যান গ্রন্থ থেকেই আরেকটি ডেটা কনটেন্ট তৈরি করা সম্ভব।

ঢাকা বিভাগে ২০১৭ সালে কোন্ জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় বেশি মানুষ মারা গেছে? বিভাগের জেলাগুলোতে ১০ বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির প্রবণতা, অর্থাৎ হ্রাস-বৃদ্ধি, কেমন? বছর ওয়ারি হিসেবে এইসব প্রশ্নের উত্তরও সহজেই পাঠক বুঝে নিতে পারেন নিচের গ্রাফিক-রিপোর্ট থেকে।